Skip to content

অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাস -উসমানীয় সাম্রাজ্যের ইতিহাস

    পৃথিবীতে যে কয়েকটি সাম্রাজ্য খুব দাপটের সাথে শাসন কার্য পরিচালনা করেছে , তাদের মধ্যে অটোমান সাম্রাজ্য অন্যতম।  অটোমান সাম্রাজ্য ছিল ক্ষমতা,প্রতিপত্তি, ধন-সম্পদ, জ্ঞান-বুদ্ধিতে ভরপুর এক সাম্রাজ্য। অটোমান সাম্রাজ্য ইতিহাস ছিল খুব গৌরবময়। আজ আমরা আপনাদের সামনে তুলে ধরব অটোমান সাম্রাজ্যের সকল ইতিহাস , যারা অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাস জানতে খুব আগ্রহী তারা এই অনুচ্ছেদটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন। অটোমান সাম্রাজ্য মূলত মুসলমানদের ইতিহাস আরও বেশি সুসংহত করেছে। মুসলমান ধর্ম আরও বেশি বিস্তৃতি করতে অটোমান সাম্রাজ্যের অনবদ্য ভূমিকা পালন করেছে। যে কোন ইতিহাস জানতে আমাদের ওয়েব সাইট ভিজিট করতে পারেন, আমাদের ওয়েব সাইটে বিভিন্ন রকম ইতিহাস তুলে ধরি। আজ আপনাদের সুবিধার জন্য অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা করব।

    অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাস

    সাম্রাজ্যের সাম্রাজ্যের অভ্যুদয়ঃ ১২৯৯ সালে
    অটোমান সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতাঃ উসমান গাজী
    অটোমান সাম্রাজ্যের আয়তনঃ ১৮,০০,০০০ বর্গ কিলোমিটার
    অটোমান সাম্রাজ্যের রাজধানীঃ বুরসা
    অটোমান সম্রাজ্যের স্থায়ীকালঃ প্রায় ৬শ বুছর
    পেলেকেনোনের যুদ্ধঃ ১৩২৯
    কনস্টান্টিনোপল জয়ঃ ১৪৫৩ সালে
    কনস্টান্টিনোপল জয়ের নায়কঃ ওসমানের বংশধর সুলতান দ্বিতীয় মুহাম্মদ ফাতিহ
    সরকারি ভাষা ছিলোঃ তুর্কি

    উসমানীয় সাম্রাজ্যের ইতিহাস

    অটোমান সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা ছিল কায়ী বসতির সুলেমান শাহের ছেলে আরতুগ্রুল গাজীর। তবে উসমানীয় সম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা আরতুগ্রুল গাজীর ছোট ছেলে উসমান গাজী। পনের শতাব্দীতে সামরিক ও অর্থনৈতিক দুটি শক্তিতে অটোমানরা ছিল  পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ একটি সাম্রাজ্য। এশিয়া ও ইউরোপ মহাদেশ জুড়ে বিস্তৃত ছিলো বিশাল অটোমান বা ওসমানীয় সাম্রাজ্য।

    একটা সময় পূর্ব ও উত্তর আফ্রিকাও অভিযান চালিয়ে তাদের দখলে  নিয়ে নেয়।  বর্তমান তুরস্কের ইস্তাম্বুলসহ অন্যান্য শহরের মসজিদগুলি ও অটোমান সুলতানদের ব্যবহার করা তোপকাপি প্রাসাদসহ অন্য প্রাসাদগুলো দেখলে বোঝা যায় তাদের সাম্রাজ্য যেমন ছিল ধারে-ভারে অনেক এগিয়ে তেমনি তাদের শাসকগণে জীবনযাপন ও রুচিশীলতা । ১৪৫৩ সালে সুলতান দ্বিতীয় মুহাম্মদ যখন কনস্টান্টিনোপল জয় করেন সে সময় রাষ্ট্রটি খুব শক্তিশালী সাম্রাজ্যে পরিণত হয়। ইতিহাস বিখ্যাত দানিয়ুব নদীর তীরবর্তী অঞ্চল থেকে শুরু করে নীল নদ অবধি প্রসারিত অটোমান সাম্রাজ্যের শক্তিশালী সামরিক বাহিনী, লাভজনক অর্থনৈতিক অঞ্চল, বিখ্যাত সব স্থাপনা এবং জ্যোতির্বিদ্যার সুদূরপ্রসারী উন্নতি বিশ্বের অন্যসব সম্রাটের ঈর্ষার কারণ ছিল।

    অটোমান সাম্রাজ্য পতনঃ বহিঃশক্তি  ফ্রান্স , ব্রিটেন, অস্ট্রিয়া, রাশিয়ার চাপে এবং নিজ সাম্রাজ্যের ভিতর সমাজ ও ধর্ম সংস্কারের আন্দোলন খেলাফতের পতন ঘটাতে বাধ্য করে। ১৯২৩ সালে অটোমান সাম্রাজ্যের পতন হয়।

    অটোমান সাম্রাজ্যের রাজধানী কোথায় ছিল? প্রথম উসমান ও মালহুন হাতুনের ছেলে প্রথম ওরহান ১৩২৪ সালে বুরসা জয় করেন। এবং এই বুরসাকেই প্রথম অটোমান সাম্রাজ্যের রাজধানী করা হয়।

    অটোমান সাম্রাজ্যের শেষ সুলতানঃ দ্বিতীয় মোস্তফা

    অটোমান সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা কে, অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাস, অটোমান সাম্রাজ্য কোন দেশের,অটোমান সাম্রাজ্য পতন,
    অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাস বাংলা,অটোমান সাম্রাজ্যের কাহিনী, অটোমান সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার ইতিহাস, অটোমান সাম্রাজ্যের পতন ঘটে কত সালে, তুরস্কের অটোমান সাম্রাজ্য, অটোমান সাম্রাজ্যের শেষ সুলতান

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    "কনটেন্ট চুরি করে নিজকে চোর প্রমাণ করবেন না" KF