Headlines

আমাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ঘরে বসে আয় করুন। এফিলিয়েট মার্কেটিং টিপস ও গাইডলাইন

নিউজ ডেস্ক   |  06:00, December 16, 2018

আপনার পাশের বাসার মুদি দোকান বা ভ্যারাইটিজের দোকানের কথা ধরুন,সহজে বোঝার খাতিরে আমাজন একটি অনলাইন দোকান মনে করতে পারেন যারা কোটি কোটি ডলার উপার্জন করে।  অ্যামাজন বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত অনলাইন বিপণন প্ল্যাটফর্ম যা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। এখানে আমাজন এফিলিয়েট প্রোগ্রাম চালু রয়েছে। আপনি যদি একজন আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটার হয়ে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করতে চান,তাহলে এই পুরো পোষ্টটি আপনার জন্য। আজব হলো আমাজন খুচরা বিক্রেতা হিসেবে ২০১৭ সালে আয় করে নিয়েছে ১৭৭.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এই ধরনের কোম্পানির অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম ছোট ব্যবসাকারী এবং বিপণনকারীদের(অনলাইন মার্কেটারদের) কাছে একটি আকর্ষণীয় ও বিশ্বাসযোগ্য প্ল্যাটফর্ম।

আমাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করার সিক্রেট টিপসঃ

০১। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এ আসতে হলে আপনাকে ‘নিস’ শব্দের সাথে পরিচিত হতেই হবে। এক কোথায় বলা যায়, যে বিষয় বা ক্যাটাগরির উপর আপনার মার্কেটিং দক্ষতা দ্বারা আপনি প্রোডাক্ট বিক্রি করবেন,সেই বিষয় বা ক্যাটাগরিই হলো ‘নিস’ । সাধারণত সেই প্রোডাক্ট বিষয়ে আপনাকে বিশদ আলোচনা করতে হয় ফলে ভিসিটর জানতে পারে প্রোডাক্ট সম্পর্কে এবং ক্রয় করতে আগ্রহ প্রকাশ করে। এখানে টিপস হলো ফিসিক্যাল প্রোডাক্ট নির্বাচন করা।

০২।  আপনি চেষ্টা করুন যেন আপনার বিশদ আলোচনা বা কনটেন্ট এর মধ্যে আপনার প্রোডাক্টের যেন লিঙ্ক থাকে।

০৩। অবশ্যই প্রোডাক্টের ইমেজ ব্যাবহার করতে হবে।  এবং ইমেজটিকে এমাজনের প্রোডাক্টের লিঙ্ক দ্বারা  সংযুক্ত করতে হবে।

০৪। আপনি ব্লগ লেখেন বা ডিরেক্ট প্রোডাক্ট রিভিউ দেন, সব ক্ষেত্রে অ্যামাজনের সাইট লিঙ্ক আপ করুন। সেটা ০৬ থেকে ১১ বা তার বেশি।

০৫। দেরি না করে সরাসরি প্রোডাক্ট রিভিউতে চলে যান ,কারন এই ধরনের কনটেন্টে প্রোডাক্টের লিঙ্কে ক্লিক পড়ে বেশি।

০৬। অবশ্যই ইমেইল মার্কেটিং করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে কনটেন্ট এ বা সাইটের অন্য অংশে ‘ সাইন আপ হেয়ার ‘ ‘ Sign Up Here ‘ এই টাইপের কথাবার্তা দিয়ে ভিসিটরকে সাইন আপ করাতে পারেন, এবং মেইল লিস্ট তৈরি করে নতুন পোষ্ট বা প্রোডাক্ট আসলে তাদের মেইল করতে পারেন।

০৭। বিভিন্ন স্পেশাল দিনে টার্গেট করুন, আপনার নিস অনুসারে এবং কুপন ও প্রমো কোড সংযুক্ত ব্যানার বা পোষ্ট করুন আপনার ওয়েবসাইটে।

০৮। এমাজনের যে প্রোডাক্ট সব চেয়ে বেশি কমিশন দেয় সেই সমস্ত প্রোডাক্ট নির্বাচন করুন।

০৯। অধিক ট্র্যাকিং আইডি ব্যাবহার করুন এবং Buy Now বাটন করবেন।

১০।  প্রোডাক্টের গুণাবলীর পার্থক্যের চার্ট তৈরি করুন। যাতে কাস্টমার একটা সামারি পায়।

১১। Amazon.com/best seller এই লিঙ্ক থেকে জেনে নিন বেস্ট সেলার কারা, তারপর প্রতি সপ্তাহে  বা মাসে বেস্ট সেলারদের একটা তালিকা দ্বারা পোষ্ট পাব্লিশ করুন।

আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবোঃ

উপরের বর্ণনা গুলো সংক্ষেপে আলোচনা করা হয়েছে। এখন আমরা বিস্তারিত জানবো। তো প্রথম কথা হলো আপনার নিসের আলোকে কিওয়ার্ড নির্বাচন পক্রিয়া। নিস সিলেক্ট এর পর এটা হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং জগতে প্রবেশের প্রথম ধাপ।  তাহলে দেখে  নেয়া যাক আমাজন কিওয়ার্ড রিসার্চ পক্রিয়াঃ

  1. আপনি যদি একেবারের গুগলের উপর নির্ভর করে থাকনে তাহলে ভুল হবে। সাথে সাথে আপনাকে এমাজনে সার্চ এর দিকে নজর দিতে।  কোন টাইপের কাস্টমার কোন ধরনের প্রোডাক্ট কিনবে এবং কেনার সময় তারা কি লিখে আমাজনে বা গুগলে সার্চ দিবে। এটা বুঝতে পারলে আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং একটু জেনে গেলেন।
  2. আপনাকে অ্যামাজনের সার্চ কেমন ভাবে কাজ করে, তাদের স্ট্রাকচার কেমন, কেমন দাম,রিভিউ ইত্যাদি সম্বন্ধে আপনার a2z ধারনা রাখতে হবে। তাহলে আপনি সহজে কিওয়ার্ড বের করতে পারবেন।
  3. আপনাকে মাথার মধ্যে রাখতে হবে আপনার সাইটের ভিসিটরকে সেলিং পর্যায়ে নিতেরযেতে হবে। তাই আকর্ষণীয় কনটেন্ট মেক করতে হবে যেখানে প্রোডাক্টের বিস্তারিত বর্ণনা থাকে। তাহলে যে কিওয়ার্ডে বা নিসে ভালো দক্ষ বা মনোবল থাকবে সেটাই সিলেক্ট করতে হবে।
  4. এখন আপনাকে জানতে হবে- কিওয়ার্ড  ও লং টেইল কিওয়ার্ড কি? একটা উদাহরন দিয়ে শুরু করা যাক,ধরুন আপনি একটা বদনা কিনবেন। তাহলে আপনি এমাজনে লিখলেন “ভালো বদনা” এটা হলো একটা কিওয়ার্ড আর যদি আপনি খুব ভালো বদনা চান তাহলে লিখবেন “ভালো বদনা” এটাও কিওয়ার্ড । এখন যদি আপনার বউ বলে বেগুনি ভালো বদনা দরকার, তাহলে লিখবেন “বেগুনি ভালো বদনা ক্রয়” এবং এটাই হলো লং টেইল কিওয়ার্ড । এখন স্বভাবত আপনি চাইবেন ‘ভালো বদনা’ ,’ভালো বদনা’ কিওয়ার্ড নির্বাচন করি কারন এটাই সব চেয়ে বেশি চলবে কারন এর সার্চ ভলিউম বেশি। আর আপনার জন্য তক্ষনি চ্যালেঞ্জ নেমে আসে। তাই সহজে কম সাফল্য পেতে বিগিনারদের বলা হয়ে থাকে লং টেইল কিওয়ার্ড নির্বাচন করতে।
  5. কে কি করলো দেখার দরকার নেই আপনার ভালো কিওয়ার্ড বের হয়ে গেলে আপনি কনটেন্ট ডেভেলপ ও  এস ই ও করুন। এখানে কে দ্বারা কম্পিটিটর বোঝানো হয়েছে।

আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং বাংলা কোর্স

আপনি নিজেকে একজন দক্ষ অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েটর  তৈরি করতে চান। এবং প্রতি মাসে ৫০০ থেকে ১০০০ ডলার আয় করতে পারবেন। এখন আপনার জন্য দরকার সঠিক গাইডলাইন। আর এই গাইডলাইনের জন্য প্রিমিয়াম ভিডিও টিউটোরিয়াল তৈরি করেছেন  Md Rajibul,MD FAKRUL ISLAM,Khalid Farhan এর মত জনপ্রিয় ও অনলাইন প্রফেশনাল ট্রেইনার। যারা আপনাকে নিয়ে যাবে এফিলিয়েটের দুনিয়ায়।  তাদের পুরো ভিডিও সিরিজ এখন অনলাইনে পাচ্ছেন। যদি ইন্টারনেট না থাকে তাহলে কুরিয়ারে ডিভিডি ও ব্যাবস্থা রয়েছে। তাই,অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কোর্স করে ঘরে বসে আয় করুন।

অনলাইনে এই কোর্স টি যাচাই করুন ও অফারসহ সরাসরি কোর্স টি ক্রয় করুন। 

আমাদের ওয়েবসাইটের ফ্রিলেন্সিং কেয়ার ক্যাটাগরির সকল পোস্ট পড়ুন

This Post About:

আমাজন থেকে আয়,আমাজন মার্কেটিং,অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং টিউটোরিয়াল,আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং,অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়,এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো,এফিলিয়েট মার্কেটিং বই,অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ঘরে বসে আয়, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বই,অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়,অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং pdf,অ্যামাজন ডট কম,অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং টিউটোরিয়াল,অ্যামাজন বাংলাদেশ,এফিলিয়েট মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং বাংলাদেশ,আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং কি,এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করুন,এফিলিয়েট মার্কেটিং কোর্স,এফিলিয়েট মার্কেটিং সাইট,এফিলিয়েট মার্কেটিং ২০১৯,

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

For Advertisement

Latest Posts
Popular Posts

For Advertisement