ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার সহজ উপায়

প্রায় ৮৫% পুরুষের বয়স ৫০ বছর হওয়ার সাথে সাথে তাদের চুলগুলি পাতলা হয়ে যায়। কিছু ছেলে ২১ বছর বয়স হওয়ার আগেই তাদের  চুল হারিয়ে ফেলতে শুরু করে। বিশেষজ্ঞদের মতে প্রতিদিন একশ’টা চুল পড়া স্বাভাবিক। তবে চুল পড়া নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। চুল পড়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের মাথায় নতুন চুলও গজায়। তবে যদি চুল যদি বেশি পরিমাণে পড়ে, অর্থাৎ চুল পড়ার হার যদি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়, তখনই টাকা পড়া শুরু করে।

ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার সহজ উপায়

ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার সহজ উপায়

১। নিয়মিত চুল ধোয়া চুল ও মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখার মাধ্যমে চুল পড়া রোধ করার একটি অংশ। এটি করে, আপনি সংক্রমণ এবং খুশকি হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দিচ্ছেন যা চুল ভেঙে বা ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। তদুপরি, পরিষ্কার চুল আরও ভলিউমের ছাপ দেয়।

২। ভিটামিন সুস্থতার জন্য কেবল নয়, আপনার চুলের ভালোর জন্যও অন্যতম উপাদান। ভিটামিন এ মাথার ত্বকে সিবামের স্বাস্থ্য উন্নতি করে দেয়, ভিটামিন ই চুলের ফলিকগুলি উৎপাদনশীল রাখতে এবং ভিটামিন বি চুলের ভালো রঙ বজায় রাখতে সহায়তা করে। মাথার ত্বকে রক্ত ​​সঞ্চালনকে আরও ভাল করে তোলে।

৩। যাঁরা বেশ কিছুদিন ধরে চুল পড়ার সমস্যায় পড়ছেন তাদের অবশ্যই কয়েক মিনিটের জন্য প্রয়োজনীয় তেল দিয়ে মাথার ত্বকে মাসাজ করতে হবে। এটি আপনার চুলের ফলিকগুলি সক্রিয় রাখতে সহায়তা করে। আপনি বাদাম বা তিলের তেলে ল্যাভেন্ডার যুক্ত করতে পারেন।

৪। চুল ভিজে গেলে এটি তার দুর্বল অবস্থায় থাকে। তাই ভেজা চুল ব্রাশ করা এড়িয়ে চলুন কারণ চুল পড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তবে আপনার যদি অবশ্যই ভেজা চুলগুলি চিরুনি দেয় তবে খুব প্রশস্ত দন্তযুক্ত চিরুনি ব্যবহার করুন। চুল ঘন ঘন চুল ক্ষতি করতে এবং ক্ষতি বাড়াতে পারে তাই চুল ঘন ঘন চুল ব্রাশ করা এড়িয়ে চলুন। টংগলগুলি পূর্বাবস্থায় ফেলার জন্য আপনার আঙ্গুলগুলি ব্যবহার করুন, ঝুঁটি বা ব্রাশ নয়।

৫। গবেষণায় দেখা গেছে যে চুলে গ্রিন টি মাখানো চুল পড়া সমস্যা রোধ করতে পারে। আপনাকে যা করতে হবে তা হ’ল এক কাপ জলে দুই ব্যাগ গ্রিন টি তৈরি করুন, ঠান্ডা হয়ে গেলে এটি আপনার চুলে লাগান। এক ঘন্টা পরে আপনার চুল ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। ফলাফলগুলি দেখতে এক সপ্তাহ থেকে দশ দিন নিয়মিত অনুশীলন করুন।

৬। প্রতিদিন শারীরিক ক্রিয়াকলাপের জন্য দিনে প্রায় ৩০ মিনিটের জন্য হাঁটুন,এছাড়া সাঁতার বা সাইকেল চালানো হরমোনীয় মাত্রা ভারসাম্য বজায় রাখতে, চুল পড়া কমাতে সহায়তা করে।

৭। সিগারেট ধূমপানের ফলে মাথার ত্বকে রক্তের পরিমাণ কম প্রবাহিত হয় এবং চুলের বৃদ্ধি কমে যায়। ফলে ধূমপান এড়িয়ে চলুন।

৮। অতীতে গবেষণাগুলি চুল পড়ার সাথে মানসিক চাপ যুক্ত করার চিকিত্সার প্রমাণ পেয়েছে। নিজেকে ডি-স্ট্রেস করুন; এটি করার অন্যতম উপায় হ’ল ধ্যান অনুশীলন করা। ধ্যান এবং যোগের মতো বিকল্প চিকিত্সা কেবল চাপ হ্রাস করে না তবে হরমোনীয় ভারসাম্য পুনরুদ্ধার করে

০৯। চুল পড়ার জন্য দায়ী কারণ হিসেবে প্রতীয়মান হতে পারে আপনার শরীরের পানি ঘাটতি বা কম পানি পান করার প্রবণতা। চুল পড়া রোধ করতে চাইলে সবার আগে শরীরকে পর্যাপ্ত পানি সরবরাহ করুন। আপনার এই ছোট্ট চেষ্টা টুকুই চুল পড়া কমিয়ে তুলবে।

১০। চুল পড়া বন্ধ করতে মেথি আপনার উপকারে আসতে পারে। ১ টেবিল চামচ মেথি সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে উঠে বেঁটে তা মাথায় লাগান। হালকা ম্যাসাজ করে আধাঘণ্টা পর চুল ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন চুল পড়ার পরিমাণ কমে আসছে।

১৩। মাথায় নতুন চুল গজাতে কালোজিরার তুলনা হয়না। এখন বাজারে হরহামেশাই কালোজিরার তেল কিনতে পাওয়া যায়। আপনি চাইলে মাথায় কালোজিরার তেল ব্যবহার করতে পারেন আবার ইচ্ছে করলে কালোজিরা খেতে পারেন।


ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার উপায়,ছেলেদের চুল পড়ার কারণ,ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার শ্যাম্পু,ছেলেদের চুল পড়া কমানোর উপায়,ছেলেদের চুল পড়ার সমাধান,ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার তেলের নাম,ছেলেদের চুল পড়ার ঔষধ,ছেলেদের চুল পড়ার কারণ ও প্রতিকার,ছেলেদের চুল পড়া বন্ধের শ্যাম্পু,ছেলেদের চুল পড়া বন্ধের ঘরোয়া উপায়,ছেলেদের চুল পড়া রোধে যা করণীয়,ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ,ছেলেদের চুল পড়ার কারণ কি,ছেলেদের চুল পড়া সমস্যা ও সমাধান,kfplanet.com,

17 thoughts on “ছেলেদের চুল পড়া বন্ধ করার সহজ উপায়”

  1. আমার বয়স ১৬ বছর। চুলে তেল ম্যাসাজ বা চুল একটু নড়াচড়া করালেও চুল পরে যাচ্ছে। কি করতে পারি আমি??

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *