বাংলাদেশে অনলাইন ব্যাংকিং সিস্টেম

বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যাংকিং দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। দ্রুত ব্যাংকিংয়ের চাহিদা ও প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করে বেশ কয়েকটি বেসরকারি পাশাপাশি স্থানীয় ব্যাংকও অনলাইনে চলছে। ইন্টারনেট ব্যাংকিং কেবল চব্বিশ ঘন্টা ব্যাঙ্কিংয়ের সুবিধা সরবরাহ করে না তবে একটি দেশকে আন্তর্জাতিক অর্থনীতির পাশাপাশি ব্যবসায়ের সাথে যুক্ত হতে সহায়তা করে। বিশ্বজুড়ে লোকেরা এখন আরও বেশি ক্রিয়াকলাপ এবং ব্যবসায়ের সাথে জড়িত রয়েছে এবং তাই তার / তার অ্যাকাউন্টে দ্রুত এবং যে কোনও সময় অ্যাক্সেসের প্রয়োজন। ইন্টারনেট ব্যাংকিং বিভিন্ন পণ্য ক্রয় ও বিক্রয় সহজতর করে যা দেশে দেশে পরিবর্তিত হয়।

বাংলাদেশে অনেক ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং চালু করেছে। এইচএসবিসি, সিটি ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, যমুনা ব্যাংক অন্যতম।

বাংলাদেশে অনলাইন ব্যাংকিং

অনলাইন ব্যাংকিং সিস্টেম

একসময় বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যাংকিং ছিলো স্বপ্নের মতো। আর বাংলাদেশে ব্যাংকের ছিলো নানা বিধিনিষেধ। এছাড়া ছিলো নানা প্রযুক্তিগত বাঁধা। ইন্টারনেটের মাধ্যমে যে সাধারণ ব্যাংকিং কার্যক্রমকেই ইন্টারনেট ব্যাংকিং বা অনলাইন ব্যাংকিং বলে। এক্ষেত্রে ইন্টারনেট-এ যুক্ত হয়ে ব্যাংকের নির্দিষ্ট সুরক্ষিত ওয়েবসাইট-এর মাধ্যমে একজন গ্রাহক তার ব্যাংক একাউন্টে প্রবেশ করে।

 

১। বৈদ্যুতিন ব্যাংকিংয়ের সহায়তায় শ্রমিক সংখ্যা হ্রাস করে প্রশাসনিক ব্যয় হ্রাস করা।

২।বৈদ্যুতিন ব্যাঙ্কিংয়ের সাহায্যে কাগজের কাজের পরিমাণ হ্রাস।

৩।বিভিন্ন ধরণের ফি-যেমন ডেবিট কার্ড ফি, ক্রেডিট কার্ড ফি ইত্যাদি মাধ্যমে আয়ের বৃদ্ধি

৪।প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশে অবস্থানকে শক্তিশালী করা

৫। প্রত্যন্ত অঞ্চলে পরিষেবা সম্প্রসারণ করা

ক্লায়েন্টদের দৃষ্টিকোণ:

১।চব্বিশ ঘন্টা অর্থাৎ যে কোন সময়ে ব্যাংকিং করা যায়।

২। স্বল্প সময়ে যেকোন স্থানে অর্থ প্রেরণ করা সম্ভব।

৩। লেনদেণ ছাড়াও নানারকম তথ্য যেকোনো স্থান থেকে পাওয়া যায়।

৪।ইলেকট্রনিক ফান্ড ও ইলেকট্রনিক মানি ব্যবহারের ফলে গ্রাহকের ব্যবসায়িক লেনদেন দিন দিন সহজ হয়।

৫। অনলাইন ব্যাংকিং চালুর ফলে গ্রাহকের অযথা হয়রানি বন্ধ হয় সেবা উন্নত হয়।

 

১।বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো অনুসারে, ১৯৯০ – ২০০১ সালে বাংলাদেশে বেকার মানুষের সংখ্যা ছিল ১.০ মিলিয়ন। তাদের মধ্যে 0.2 মিলিয়ন পুরুষ এবং 0.8 মিলিয়ন মহিলা, বেকারত্বের হারে 1.1 ছিল যা বাড়ানো হয়েছিল 1.9। মানুষের চাকরি দূর করার কম্পিউটারগুলির বিষয়টি বেশ আবেগময় এবং বেদনাদায়ক বাস্তব ছিল real তবে এর দুটি পক্ষ রয়েছে যে অটোমেশন রেকর্ড কিপারের মতো নির্দিষ্ট ধরণের কাজকে সরিয়ে দেবে এবং প্রশাসক, সিস্টেম বিশ্লেষক, প্রোগ্রামার, অপারেটর ইত্যাদির মতো চাকরি তৈরি করবে এবং বেকার সমস্যা হ্রাস করতে সহায়তা করবে। জাতীয় অর্থনীতির সাথে জিডিপি ব্যাংকগুলিতে অবদান, জাতীয় মূলধন গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করা, জাতীয় সঞ্চয় বৃদ্ধি এবং বাণিজ্য ও শিল্পে বিনিয়োগ জোগাড় করা।

২।ব্যাংকগুলির দৃষ্টিভঙ্গি থেকে, ই-ব্যাংকিং পরিষেবাগুলি সরবরাহকারী ব্যাংকগুলির জন্য প্রথম সুবিধাগুলি ছিল আরও ভাল ব্র্যান্ডিং এবং বাজারে আরও ভাল প্রতিক্রিয়া। অন্যান্য সুবিধাগুলি আর্থিক শর্তাবলী পরিমাপ করা সম্ভব ছিল। প্রতিটি সংস্থার মূল লক্ষ্য ছিল তার মালিকদের পক্ষে সর্বাধিক মুনাফা করা এবং ব্যাংকগুলিও তার ব্যতিক্রম ছিল না। স্বয়ংক্রিয় ই-ব্যাংকিং পরিষেবাগুলি সর্বাধিক মুনাফা অর্জনের জন্য একটি নিখুঁত সুযোগ দেয়।

৩।ব্যাংক গ্রাহকদের দৃষ্টিভঙ্গির প্রধান সুবিধা হ’ল ব্যাংকিং পরিষেবাদি প্রক্রিয়াকরণের স্বয়ংক্রিয়তা এবং গ্রাহকের অর্থ পরিচালনার জন্য একটি সহজ রক্ষণাবেক্ষণ সরঞ্জাম প্রবর্তনের মাধ্যমে সময় সাশ্রয় করা। ব্যাংকের সাথে শারীরিক মিথস্ক্রিয়করণের প্রয়োজন ছাড়াই বর্ধিত আরাম এবং সময় সাশ্রয়-লেনদেন 24 ঘন্টা তৈরি করেছে। তথ্যে দ্রুত এবং অবিচ্ছিন্ন অ্যাক্সেস। কর্পোরেশনগুলির কাছে তথ্যের সহজতর অ্যাক্সেস ছিল, তারা একটি বোতামের ক্লিকে একাধিক অ্যাকাউন্টে চেক করেছে। আরও ভাল নগদ ব্যবস্থাপনা। ই-ব্যাংকিং সুবিধাগুলি নগদ চক্রকে ত্বরান্বিত করে এবং ব্যবসায়ের প্রক্রিয়াগুলির দক্ষতা বাড়ে যেহেতু বিভিন্ন ধরণের নগদ পরিচালনার যন্ত্রপাতি ব্যাংকগুলির ইন্টারনেট সাইটে পাওয়া যায়। বেসরকারী গ্রাহকরা ই-ব্যাংকিং থেকে কিছুটা ভিন্ন ধরণের সুবিধাগুলি চেয়েছিলেন।

৪।হ্রাসকৃত ব্যয়: এটি বিভিন্ন ব্যাংকিং পণ্য ও পরিষেবাদি গ্রহণ ও ব্যবহারের ব্যয়ের ক্ষেত্রে ছিল।

৫।সুবিধা: সমস্ত ব্যাংকিং লেনদেন বাড়ি বা অফিসের স্বাচ্ছন্দ্য থেকে বা গ্রাহক যে জায়গাটি চান সেখান থেকে সঞ্চালিত হয়।

৬।গতি: মাধ্যমের সাড়া খুব দ্রুত ছিল; সুতরাং গ্রাহকরা তহবিল স্থানান্তর শেষ করার আগে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করেছিলেন।

৭।তহবিলের পরিচালনা: গ্রাহকরা বিভিন্ন অ্যাকাউন্টের ইতিহাস ডাউনলোড করেন এবং ওয়েবে কোনও লেনদেনকে প্রভাবিত করার আগে তাদের নিজস্ব পিসিতে একটি “কী-যদি” বিশ্লেষণ করেন।

৮।অর্থনৈতিক সুবিধা:
ই-ব্যাংকিং কেবলমাত্র ব্যাঙ্ককেই নয়, সামগ্রিকভাবে সমাজকেও অনেক সুবিধা দিয়েছে। ই-ব্যাংকিং আর্থিকভাবে অর্থনৈতিকভাবে সম্ভব করেছে:

(i) ব্যাংকের কম পরিচালিত ব্যয়

(ii) স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া

(iii) তাত্ক্ষণিক ঋণ  সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত

(iv) লাভজনক হতে সর্বনিম্ন লোনের আকার হ্রাস করা হয়েছে।

v) স্বচ্ছতা বৃদ্ধি।

অনলাইন ব্যাংকিং এর অসুবিধাঃ

যদিও ই-ব্যাংকিংয়ের উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে তবে এটি কিছু আর্থিক ঝুঁকির সাথেও জড়িত। ই-ব্যাংকিংয়ের প্রধান ঝুঁকির মধ্যে অপারেশনাল ঝুঁকিগুলি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে (উদাঃ সুরক্ষা ঝুঁকি, সিস্টেম ডিজাইন, বাস্তবায়ন এবং রক্ষণাবেক্ষণ ঝুঁকি); গ্রাহকরা পণ্য এবং পরিষেবাগুলির ঝুঁকির অপব্যবহার করে; আইনী ঝুঁকিগুলি (উদাঃ যথাযথ আইনী সহায়তা ব্যতীত, অর্থ পাচারের প্রভাব পড়তে পারে); কৌশলগত ঝুঁকি; খ্যাতি ঝুঁকি (উদাঃ ব্যাংক নিরাপদ এবং সমস্যামুক্ত ই-ব্যাংকিং পরিষেবা সরবরাহ করতে ব্যর্থ হলে, এই খ্যাতি ঝুঁকির কারণ হবে); ঋণ ঝুঁকি; বাজার ঝুঁকি; এবং তরলতা ঝুঁকি। সারাদেশে ইন্টারনেট ব্যাংকিং পরিষেবা সম্প্রসারণের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল জনপ্রিয়তা অর্জন করা। বাংলাদেশে বেশিরভাগ মানুষ নিরক্ষর এবং স্পষ্টতই তারা প্রযুক্তি অজ্ঞ ছিল। কিন্তু সাক্ষরতার অংশগুলির মধ্যে অনেকের কাছে কম্পিউটার ফোবি ছিল। সুতরাং এই লোকেরা ইন্টারনেট ব্যাংকিং পরিষেবাগুলিতে বিশ্বাস রাখতে পারেনি। ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের উপর আস্থা অর্জনের জন্য কম্পিউটারের সামগ্রিক শিক্ষার বিকাশ করতে হবে। এই লক্ষ্য নিয়ে সরকার দেশে এটির সাক্ষরতার বিকাশের জন্য মূল স্তরেও উদ্যোগ নিয়েছিল। এটি ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের উন্নয়নের জন্য উপযুক্ত ক্ষেত্র হবে । তবে ব্যাংকিং গ্রাহকরা ক্রমবর্ধমান ডিজিটাল লাইফস্টাইল নিয়ে স্বাচ্ছন্দ্য বর্ধনের সাথে সাথে বাংলাদেশি গ্রাহকরা বাংলাদেশে ই-ব্যাংকিং সম্পর্কে সচেতন ছিলেন না। তারা প্রযুক্তির শক্তি পুরোপুরি বুঝতে পারছিল না এবং তাদের ব্যাংকিং কার্যক্রমের আরও ভাল নিয়ন্ত্রণ উপভোগ করার জন্য এটির সুবিধা অর্জনের চেষ্টা করেছিল।


অনলাইন ব্যাংকিং,অনলাইন ব্যাংকিং কি,অনলাইন ব্যাংকিং ও বাংলাদেশ,অনলাইন ব্যাংকিং সুবিধা ও অসুবিধা,অনলাইন ব্যাংকিং সমস্যা ও সম্ভাবনা,অনলাইন ব্যাংকিং রচনা,অনলাইন ব্যাংকিং এর সুবিধা,অনলাইন ব্যাংকিং এর অসুবিধা,অনলাইন ব্যাংকিং কাকে বলে,kfplanet.com,

Leave a Comment