ভিনেগার এর ব্যবহার-ভিনেগার এর উপকারিতা

ভিনেগার বা সিরকা হলো একটি রাসায়নিক তরল যা ৫-২০% এ্যসিটিক এসিড, পানি ও সামান্য পরিমান অন্যান্য রাসায়নিক পদার্থের সমন্নয়ে গঠিত।বাড়ির চারপাশে ভিনেগারের বিভিন্ন রকম ব্যবহারের সাথে, এই বিশ্বস্ত আইটেমটি আপনার বাড়িতে একটি বিশেষ স্থানের দাবি রাখে। অ্যাপল সিডার এবং সাদা ভিনেগার ব্যবহার কেবল পরিষ্কার করার কাজে ব্যবহৃত হয় না এর বাইরে অনেক কাজ আছে।

ভিনেগার এর ব্যবহার

ভিনেগার এর উপকারিতা

১।লন্ড্রি ডিটারজেন্ট এর সুবিধা সম্পর্কে কোনও সন্দেহ নেই তবে এগুলি সত্যই ব্যয়বহুল হতে পারে! বাড়ির তৈরি লন্ড্রি ডিটারজেন্টটি অবিশ্বাস্যভাবে সাশ্রয়ী মূল্যের, এবং সুবিধার্থে ত্যাগ করার প্রয়োজন নেই – আপনি খুব সহজেই বাড়িতে নিজের একক-ব্যবহার লন্ড্রি ডিটারজেন্ট ট্যাব তৈরি করতে পারেন ভিনেগার দিয়েই

২। ভিনেগার  এর ব্যবহার আপনার অফিসটি পরিষ্কার এবং নতুন দেখাবে। আপনার কম্পিউটার, প্রিন্টার, ফ্যাক্স মেশিন এবং অন্যান্য হোম অফিস গিয়ারগুলি যদি আপনি সেগুলি পরিষ্কার ও ধূলিমুক্ত রাখেন তবে আরও ভাল কাজ করবে। আপনি পরিষ্কার শুরু করার আগে, নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার সমস্ত সরঞ্জাম বন্ধ রয়েছে। এবার একটি বালতিতে সমান অংশে সাদা ভিনেগার এবং জল মিশিয়ে নিন। কিন্তু স্প্রে বোতল কখনও ব্যবহার করবেন না; কারন অভ্যন্তরের সার্কিটগুলিতে তরল এর ছোয়া লাগলে ক্ষতি হতে পারে।

৩। আপনার  মাউস   পরিষ্কার করতে একটি 50/50 ভিনেগার-জল দ্রবণ ব্যবহার করুন। প্রথমে মাউসের নীচে থেকে বলটি মুড়ে তার উপর দিয়ে কভারটি মুছে ফেলুন।  স্যাঁতসেঁতে কাটা কাপড় ব্যবহার করুন এবং বলটি পরিষ্কার করতে এবং মাউস থেকেই আঙুলের ছাপ এবং ময়লা অপসারণ করতে পারবেন।

৪। ভিনেগারের একটি গুরত্বপূর্ন গুন হলো এর অ্যন্টিমাইক্রোবিয়াল প্রভাব। যখন পানিতে এটি ব্যবহার করা হয় তখন এতে বিদ্যমান জৈব এসিড (এসিটিক এসিড) ব্যাকটেরিয়ার কোষপ্রাচীর ভেদ করে ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে।

৫। এছাড়া পানিতে এটি ব্যবহার করলে, এটি অন্ত্রের পিএইচ কমিয়ে দেয়। ফলে ই. কোলাই, সালমোনেলা, ক্লোসট্রেডিয়াম সহ ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া সেখানে বৃদ্ধি পেতে পারে না।

৬। ভিনেগার বা সিরকার অ্যন্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ঠ্য বিদ্যমান যা মুরগীর কোষকে ড্যামেজ হওয়া থেকে প্রতিহত করে।

৭। এছাড়া এটি রক্তে গ্লুকোজের (চিনি) পরিমান কমাতে সাহায্য করে। এটি কিছু কিছু এনজাইমকে নিষ্ক্রিয় করে দেয় ফলে সেগুলো শর্করাকে ভেঙ্গে গ্লুকোজ বা চিনিতে পরিনত করতে পারে না। ফ্যাটি লিভার সিনড্রোম, ওবিসিটি সহ বেশ কিছু সমস্যার ক্ষেত্রে এটি ব্যবহারে ভাল ফলাফল পাওয়া যায়।

৮। ভিনেগার ক্যান্সার রোগের চিকিৎসা বা প্রতিরোধে গুরত্বপূর্ন কাজ করে। ভিনেগার লিউকোমিয়া সেল (শ্বেত রক্ত কণিকার ক্যান্সার) বৃদ্ধিতে বাধা দেয়।

৯। এটি উচ্চ রক্তচাপ ও রক্তের ক্লোসটেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। তাই অত্যাধিক গরমের সময় ব্রয়লারের হিটস্ট্রোক প্রতিরোধে ভিনেগার ব্যবহার করলে অধিক ভাল ফলাফল পাওয়া যায়।

১০। ভিনেগারে বিদ্যমান এ্যসিটিক এসিড বিভিন্ন পুষ্টি (বিশেষভাবে মিনারেল) শোষনে গুরত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। তাই মিনারেলের অভাবজনিত সমস্যাগুলোতেও ভিনেগার ব্যবহার করা যেতে পারে।

১১। এটি পানিশূণ্যতা থেকে রক্ষা করে।

১২। মুরগীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

১৩। খাদ্যতন্ত্র ভাল রাখে। ইনডাইজেশন, ডায়রিয়াতে এটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

১৪। মুরগীর পায়খানার দুর্গন্ধ দুর করে।

১৫। এটি খাদ্যস্থিত আমিষ হজম করতে সাহায্য করে।

১৬। মুরগীর যে কোন ধকল সহজে কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে।

১৭। খাদ্য রূপান্তরের হার উন্নত করে।

১৮।কিছু গবেষণা ইঙ্গিত দেয় যে ভিনেগার গ্রহণের ফলে পেট খালি হওয়ার হারকে ধীরে ধীরে পূর্ণতা বাড়াতে পারে, সম্ভবত ক্যালরি গ্রহণ কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

১৯। টাইলসে গ্রাউট এবং শ্যাওলাগুলির সাথে মুখোমুখি হলে বেশিরভাগ লোক ব্লিচিং পাউডার ব্যবহার করে। তবে সাদা ভিনেগার কেবল টাইলস পরিষ্কার করার এবং সাদা করার ক্ষেত্রে কার্যকর নয়, এটি ক্লোরিন ব্লিচ থেকেও নিরাপদ। ঝরনা বা রান্নাঘরে কেবল গ্রাউট এবং ফুলের উপরে পূর্ণ শক্তির ভিনেগার স্প্রে করুন, এটি কমপক্ষে এক ঘন্টার জন্য ভিজিয়ে রাখুন, তারপরে এটি ব্রাশ দিয়ে সরিয়ে দিন।

২০।প্লাস্টিকের পাত্রে দাগ পরিষ্কার করতে সাদা ভিনেগার দিয়ে প্রলেপ দিন এবং রাতারাতি রেখে দিয়ে  দাগ এবং গন্ধগুলি সরিয়ে ফেলুন। ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন।


ভিনেগার ব্যবহারের নিয়ম,ভিনেগার ব্যবহার,সাদা ভিনেগারের ব্যবহার,রান্নায় ভিনেগারের ব্যবহার,চুলে ভিনেগারের ব্যবহার,
হোয়াইট ভিনেগারের ব্যবহার,আচারে ভিনেগারের ব্যবহার,আপেল সিডার ভিনেগারের ব্যবহার,birbangla.com,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *