Skip to content

সরকারি ম্যাটস এর তালিকা,সরকারি ম্যাটস এ ভর্তির যোগ্যতা ও পড়ার খরচ ২০২৩

    মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল (MATS) হল এক ধরনের বিশেষায়িত মেডিক্যাল ডিপ্লোমা স্কুল। মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুলকে সংক্ষেপে ম্যাটস বলা হয়। মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুলে তিন বছর মেয়াদী কোর্স এবং এক বছর ইন্টার্নশিপসহ মোট চার বছর সময় লাগে , এই কোর্স শেষ করতে।

    পছন্দের এলাকায় পার্টটাইম/ফুলটাইম চাকরি খুঁজে পেতে এই অ্যাপটি ইন্সটল করে এখনই আবেদন করুন

    ৪ বছরের ম্যাটস কোর্স কমপ্লিট করার পরে সরকারী ও বেসরকারিভাবে আপনার ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন সহজেই। যে সকল শিক্ষার্থী এসএসসি পাস করে ম্যাটস নিয়ে চিন্তা করছেন, তাদের জন্য ম্যাটস ভর্তি যোগ্যতা,রকারী ম্যাটস এর তালিকা, এবং সরকারি ম্যাটস পড়ার খরচ ধারবাহিকভাবে নিচে তুলে ধরা হলোঃ

    বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় অধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ (The State Medical Faculty of Bangladesh) এর মাধ্যমে পরিচালিত হয়। অনুষদের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী পাঠদান করা হয় এবং অনুষদের সরাসরি তত্বাবধানে পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়।

    সরকারি ম্যাটস ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২৩-২০২৪ দেখুন

    ম্যাটস এ ভর্তির যোগ্যতা ২০২৩

    আপনি সরকারী বা বেসরকারি ভাবে ম্যাটস ভর্তি হতে গেলে যোগ্যতা প্রয়োজন হবে। বর্তমান সময়ে ম্যাটস এ ভর্তি হওয়া একটু কঠিন হয়ে পড়েছে। কারন যোগ্যতা একটু কম লাগলেও অনেক ভাল ভাল ছাত্র এই সেক্টরে ভর্তি হচ্ছে। ফলে আপনি যোগ্যতা সম্পুর্ন হলেও ভর্তি হতে অনেক ভাল রেজাল্ট ছাত্র ছাত্রীদের সাথে কমপিটিশন করতে হচ্ছে। চলুন দেখা নেওয়া যাক যোগ্যতা সমূহঃ

    • প্রাথীকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে ।
    • এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগে থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীকে ন্যূনতম জিপিএ ২.৫ (পয়েন্ট) অর্জন করতে হবে এবং মনে রাখতে হবে অবশ্যই জীববিজ্ঞান বিষয় থাকতে হবে।
    • O-Level এবং বিদেশ থেকে পাশ করেছেন যেসব প্রার্থী, তদারকে Director, Medical Education এর কাছে ২০০০/- টাকার পে অর্ডার দিয়ে Equivalence Certificate ID ও ID Code সংগ্রহ করতে হবে। এটা ছাড়া ফরম পূরণ করা যাবেনা। বিভাগীয় প্রার্থীদের পূর্বেই Director, Medical Education এর কাছ থেকে ID Code সংগ্রহ করতে হবে।

    তবে একটি বিষয় মনে রাখবেন, অনেক A+ পাওয়া ছাত্র ছাত্রী এখান ভর্তি হওয়ার জন্য আবেদন করে থাকে। ফলে পয়েন্ট কম হলেও ভাল করে প্রস্তুতি নিতে হবে। আপনি সব ভাল ছাত্র ছাত্রীদের সাথে লড়াই করে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ভাল ফলাফল করতে হবে ।

    সরকারি ম্যাটস এর তালিকা

    বাংলাদেশে মোট ১৬ টি মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) অবস্থিত। ভর্তি পরীক্ষায় মেধা অনুসারে আপনি যে কোন একটি ম্যাটস স্কুলে ভর্তি হতে পারবেন। তবে বর্তমান সময় অনুযায়ী বলা যায় বাংলাদেশে ম্যাটস স্কুলের চাহিদা অনুসারে অনেক কম আছে। চলেন সরকারী ম্যাটস এর তালিকা দেখে নেওয়া যাকঃ

    ১) বাগেরহাট মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ২) কুষ্টিয়া মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৩) নোয়াখালী মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৪) সিরাজগঞ্জ মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৫) টাঙ্গাইল মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৬) কুমিল্লা মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৭) ফরিদপুর মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৮) ঝিনাইদহ মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ৯) সাতক্ষীরা মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ১০) টুঙ্গিপাড়া গোপালগঞ্জ মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ১১) নওগাঁ মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল

    ১২) মানিকগঞ্জ ম্যাটস

    ১৩) গাজিপুর ম্যাটস

    ১৪) রাজবাড়ি ম্যাটস

    ১৫) মাদারীপুর ম্যাটস

    ১৬) কাজিপুর, সিরাজগঞ্জ, ম্যাটস

    এই গুলি সব হল সরকারী ম্যাটস স্কুল। সারা বাংলাদেশে মোট 16 টি সরকারী ম্যাটস স্কুল গর্বিত সহিত তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

    সরকারি ম্যাটস পড়ার খরচ কত

    সরকারী ম্যাটস স্কুলে পড়া খরচ বেসরকারি থেকে অনেক কম হয়। সরকারী ম্যাটসএ ৪ বছরে কোর্স সম্পূর্ণ করতে খরচ হয় সর্ব সাকুল্যে ২০,০০০ টাকা মত।  যেখানে বেসরকারি ম্যাটস পড়তে স্থান ও কলেজ ভেদে ২,০,০০০ টাকা থেকে ৪,০০,০০০ মত খরচ হতে পারে। তবে হোস্টেল ভাড়া + বিভিন্ন প্রোগ্রাম খরচ সহ ৫,০০,০০০ থেকে ৭,৫০,০০০ খরচ হতে পারে। সুতরাং আপনি এখন ভাবেন সরকারী তে পড়বেন না বেসরকারিতে।

    ম্যাটস্ এর গুরুত্বঃ

    আমাদের দেশে এমবিবিএস ডাক্তারের সংখ্যা এখনও অনেক কম। আবার অনেক ডাক্তার এমবিবিএস পাশ করে, মফস্বল বা গ্রামে গিয়ে থাকতে বা ডাক্তারি করতে চান না। অনেক সময় দেখা যায় সরকার পদায়নে বাধ্য করলেও  অনেকে বদলি নিয়ে অথবা বিভাগীয় শহরে চলে আসেন। আবার অনেক সময় চাকরি ছেড়ে দিয়ে শহরের প্রাইভেট হসপিটালে যোগদান করেন।

    ফলে দেখা যায় দেশর বৃহত্তম জনগোষ্ঠী যারা গ্রামে বসবাস করেন তাদের সঠিক স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হয়। সেই অভাব পূরণ করতে দেশের প্রান্তিক জনগণের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা দ্রুত পৌঁছে দেবার উদ্দেশ্যে ১৯৭৬ সালে ম্যাটস্ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়ে থাকে।

    বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ (The State Medical Faculty of Bangladesh) এর আওতায় প্রথমে সরকারি উদ্যোগে ম্যাটস্ স্থাপিত হয়। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে বেসরকারি উদ্যোগে এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক সম্প্রসারণ হয়। শুরুতে এই কোর্সটির মেয়াদ ছিল ৩ বছর কিন্তু বর্তমানে এই কোর্সটি আরও আধুনিক করার জন্য ৪ বছর মেয়াদে উন্নীত করা হয়েছে।

    2 thoughts on “সরকারি ম্যাটস এর তালিকা,সরকারি ম্যাটস এ ভর্তির যোগ্যতা ও পড়ার খরচ ২০২৩”

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করতে পারেনঃ kfsoft@yahoo.com যে কোন প্রয়োজনেঃ kfplanetbd@gmail.com