Skip to content

মেয়েদের মুখে দাড়ি-গোঁফ গজালে করণীয়

    মেয়েদের মুখে অনেক সময় কিছু অবাঞ্ছিত লোম দেখা দেয়, যার ফলে চেহারার সৌন্দর্য নষ্ট হয়। মেয়েদের মুখে দাড়ি-গোঁফ গজালে কি কি করনীয় তা আমরা বিশদ আলোচনার মাধ্যমে জানতে পারব। অবাঞ্ছিত লোম বা দাড়ি-গোঁফ একজন মেয়েকে হতাশা গ্রস্থ করে তোলে। মুখে দাড়ি-গোঁফ গজানোর ফলে সে নিজের উপর  আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলে।মুখের এমন অবাঞ্ছিত লোমের জন্য সাজ গজ ও ত্বকের যত্ন সবই বৃথা হয়ে যায়। তাই সকল বোনেরাই এর স্থায়ী সমাধান চায়।

    এখন বর্তমানে মেয়েদের মুখের এই অবাঞ্ছিত লোম বা দাড়ি গোঁফের জন্য রয়েছে বিভিন্ন চিকিৎসা, তবে এসকল চিকিৎসার রয়েছে সাইড ইফেক্ট বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। অনেকে মেয়েরাই এসবের কথা ভেবে দাড়ি গোঁফ বা লোম না উঠিয়ে এই নিয়েই থাকেন এবং মানসিক হতাশায় ভোগেন। তাই স্থায়ী সমাধান পেতে হলে আমাদের সাথেই থাকুন।

    মেয়েদের মুখে দাড়ি গোঁফ গজালে করনীয় 

    মেয়েদের এমন অবাঞ্ছিত লোম স্থায়ী ভাবে দূর করার জন্য ঘরোয়া কিছু উপায় আছে। এই ঘরোয়া পদ্ধতি গুলো সম্পূর্ণ  পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। ত্বকের লোম ওঠার পাশাপাশি ত্বকের জন্যও ভালো এই উপায় গুলো।

    চিনি, লেবুর রস ও মধুর মিশ্রণঃ সাধারণত চিনি গরম করলে তা আঠালো ভাব আসে । তা  ঠোঁটের উপরে প্রলেপ দিলে লেগে যায়, যার ফলে লোম গুলো সহজে তোলা যায়।এক টেবিল চামচ লেবুর রস, ২ টেবিল চামচ চিনি ও ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে ভালো ভাবে গরম করুন। ৩ থেকে ৪ মিনিট পর্যন্ত জাল দেয়ার পর পামি মিশান। মিশ্রণ তা পাতলা হলে ঠাণ্ডা করে আপনি আপনার দাঁড়ি ও গোঁফ এ ব্যবহার করুন।

    দুধ ও হলুদের মিশ্রণঃ হলুদ ও দুধের যথাযথ ব্যবহার কলে প্রাকৃতিক ভাবে মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করা যায়। প্রয়োজন মতো হলুদ ও দুধ (৪ভাগের ১ ভাগ দুধ ও ৩ ভাগ হলুদ) নিন এবং প্যাক তৈরি করুন। প্যাকটি আলতো করে মুখে মাখুন। যেখানে অবাঞ্ছিত লোম আছে সেখানে বেশি করে মালিশ করে লোম তুলে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করলে লোম প্রাকৃতিক ভাবে দূর হবে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

    দই ও বেসনের মিশ্রণঃ দই ও বেসনের মিশ্রণটি খুব কার্যকরী। দই ও বেসনের সাথে সামান্য পরিমাণ হলুদের গুরা নিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন। এটি মুখেরভাল করে মালিশ করুন বিশেষ করে ঠোঁটের উপরে ও নিচে এবং লোম আলতো করে তুলে ফেলুন। পরে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

    কফি স্ক্রাবঃ মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করার সব থেকে কার্যকরী উপায় হল কফি স্ক্রাব। ত্বকের গভীরে ঢুকে অবাঞ্ছিত লোম দূর করার জন্য ক্যাফেইন দুর্দান্ত কাজ করে। এই স্ক্রাবটি তৈরি করতে প্রয়োজন ২ টেবিল চামচ কফি, ১ টেবিল চামচ মধু, ১ টেবিল চামচ চিনি ও ১ টেবিল চামচ লেবুর রস। এই মিশ্রণটি করার সময় প্রথমে কফি ও চিনি মেশান তার পর মধু ও লেবুর রস দিয়ে মিশ্রণ করুন। কফি ও চিনি পুরপুরি গলবে না, তাই মুখে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে বেশি সময় ধরে মালিশ করুন ও ২০ মিনিট মুখে শুকাতে দিন। তার পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিজের পরিবর্তন নিজেই লক্ষ করলে বুঝবেন কতোটা কার্যকরী।

    ওয়াক্স এর ব্যবহারঃ ওয়াক্স বানানো খুবই সহজ, ঘরে বসেই আপনি বানাতে পারবেন। লেবু  ও চিনি একসাথে ভালো করে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করলেই তৈরি হয়ে গেলো ওয়াক্স। তবে লক্ষ রাখতে হবে যেন কোন দানা না থাকে। এরপর ওয়াক্সটি যেখানে যেখানে অবাঞ্ছিত লোম আছে সেখানে ভালো করে লাগাতে হবে তারপর একটি  সুতির পরিস্কার কাপড় দ্বারা চাপ প্রয়োগ করে টান দিতে হবে। ফলে লোম দূর হবে এবং এর প্রভাব দীর্ঘ দিন স্থায়ী হবে।

    উপরোক্ত নিয়ম গুলো নিয়মিত চর্চা করলে আপনার মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর হওয়ার পাশাপাশি ত্বকে আসবে লাবণ্য। এমন অবাঞ্ছিত লোম নিয়ে নিজেকে মনকষ্ট বা মানসিক ভোগান্তি না দিয়ে নিয়মিত এসকল উপায় অনুসরণ করুন ও ব্যাবহারের ফলাফল নিজেই দেখুন এবং নিজের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি করুন।

     

     

     

     

     

     

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.